প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে রাজ্যের ক্ষতিগ্রস্থ মাদ্রাসাগুলির জন্য আর্থিক প্যাকেজ বরাদ্দ

প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে রাজ্যের ক্ষতিগ্রস্থ মাদ্রাসাগুলির জন্য আর্থিক প্যাকেজ বরাদ্দ 

সুব্রত গুহ, বেঙ্গল রিপোর্ট, পূর্ব মেদিনীপুর: বিগত আমফান, ইয়াস ও অতি বর্ষণ সহ বিগত প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থ রাজ্যের মাদ্রাসাগুলি সরকারী অর্থবরাদ্দ পাবে। ইতিমধ্যে রাজ্যের ৬৬৪৮ টি মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মেরামতির জন্য ১০৯ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর জেলার ৪২৭ টি মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের মেরামতীর জন্য বরাদ্দ কৃত অর্থের পরিমাণ প্রায় ৬ কোটি ৯১ হাজার টাকা।

 

 

 

 

রাজ্যের ৬১৪ টি মাদ্রাসার জন্য বরাদ্দকৃত অর্থের পরিমাণ ১০ কোটি টাকা। জেলার ১৮ টি হাই মাদ্রাসা ও সিনিয়র মাদ্রাসার জন্য বরাদ্দ হয়েছে ৩২ লক্ষ টাকা। তবে এই বরাদ্দকৃত অর্থ করোনা লকডাউন জনিত কারণে স্কুল বন্ধ থাকায় পরিকাঠামো সংষ্কারের কাজে ব্যবহৃত হবে।

 

 

 

আগামী ১৬ ই নভেম্বর থেকে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীর পঠনপাঠন প্রক্রিয়া চালু হবে। কিন্তু আমফান, ইয়াস ও নিম্নচাপের ফলশ্রুতিতে অতিবৃষ্টিতে অনেক স্কুল ও মাদ্রাসার পরিকাঠামো ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে।

 

 

 

 

রাজ্য সরকার নীতিগতভাবে ক্ষতিগ্রস্থ স্কুল সমূহকে এসডিআরএফ তহবিল থেকে আর্থিক অনুদান প্রদানের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। রাজ্য সরকারের মাদ্রাসা শিক্ষা অধিকর্তা আবিদ হোসেন ক্ষতিগ্রস্থ মাদ্রাসা সমূহের অর্থবরাদ্দের কথা ঘোষণা করেছেন।

 

 

 

 

প্রাক্তন সহকারী সভাধিপতি মামুদ হোসেন রাজ্য সরকারের শিক্ষা অধিকর্তার অর্থবরাদ্দের এই সিদ্ধান্ত কে স্বাগত জানিয়েছেন। মামুদ হোসেন কেলেঘাই নদীর বাঁধ ভাঙনের ফলশ্রুতিতে বন্যা পরিস্থিতিতে ক্ষতিগ্রস্থ বিদ্যালয় সমূহের মেরামতীর জন্য অতিরিক্ত অর্থ বরাদ্দের জন্য রাজ্য সরকারের শিক্ষা অধিকর্তাকে আবেদন জানিয়েছেন। সেই সাথে খেজুরী-১ ব্লকের টীকাশী-উত্তর কলমদান বাশুলী বিদ্যায়তনের ২০১৫ সালে ভূমিকম্প জনিত কারণে বিধ্বস্ত ভবনের সংষ্কারের লক্ষে পর্যাপ্ত অর্থবরাদ্দের জন্য শিক্ষা মন্ত্রী অধ্যাপক ব্রাত্য বসু কে ই-মেইল বার্তা পাঠিয়েছেন প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মামুদ হোসেন।

Facebook Comments