বোলপুরে বৃদ্ধ দম্পতিকে নৃশংস ভাবে খুন

বোলপুরে বৃদ্ধ দম্পতিকে নৃশংস ভাবে খুন

অমলেন্দু মন্ডল, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: বৃদ্ধ দম্পতিকে নৃশংস ভাবে খুন। ঘটনাটি ঘটেছে লাভপুর থানার কীর্ণাহারের ব্রাহ্মণ পাড়ায়। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান মাথা থেতলে খুন করা হয়েছে ওই দম্পতিকে। শুক্রবার সকালের এই ঘটনার জেরে চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। প্রতিবেশীদের ফোন পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসে লাভপুর থানার পুলিশ। গ্রামবাসীদের দাবি মেনে পুলিশ কুকুর আনা হয়। তবে, পুলিশ কুকুর ঘরের মধ্যেই চক্কর মারে। জানা গেছে, কীর্ণাহারের ব্রাহ্মণ পাড়ায় থাকতেন বৃদ্ধ দম্পতি। পূর্ণেন্দু চট্টোপাধ্যায় (৭৮) ও স্বপ্না চট্টোপাধ্যায় (৬৮)। পূর্ণেন্দুবাবু অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক ও স্বপ্নাদেবী অবসরপ্রাপ্ত রেলকর্মী। বাড়িতে তারা দু’জন মিলে থাকতেন। ছেলে কর্মসূত্রে বাইরে থাকে।

এদিন সকালে যথারীতি রান্নার কাজে আসেন স্থানীয় বাসিন্দা সুপ্রিয়া বাগদি ওরফে ফুলি। তিনিই বেশ কিছুক্ষণ দরজায় ডাকাডাকি করেন। কেউ সাড়া দিচ্ছে না দেখে বাড়ির কেয়ারটেকার স্বদেশ ঘোষ কে তার বাড়িতে ডাকতে যায়। প্রতিবেশীরা জানান, তাদের শোয়ার ঘরে দুটি আলাদা খাটে রক্তাক্ত অবস্থায় মৃতদেহ দুটি পড়ে আছে। পাশে পরেছিল হাতুড়ি ও রক্তাক্ত বাটখারা। দুজনের মাথায় ভারি জিনিস দিয়ে থেঁতলে মারার চিহ্ন স্পষ্ট।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন অতিরিক্ত জেলা পুলিশ সুপার (বোলপুর) শিবপ্রসাদ পাত্র, বোলপুরের এসডিপিও অভিষেক রায়ের নেতৃত্বে পুলিশ বাহিনী। পরে ঘটনাস্থলে পৌঁছান জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং। পুলিশের প্রাথমিক অনুমান চিলেকোঠার ছাদ দিয়ে আততায়ীরা বাড়িতে ঢুকে ছিল।চুরি করতে এসে দুষ্কৃতিদের চিনে ফেলে বৃদ্ধ দম্পতি। সেই কারনেই এই খুন বলে মনে করছে পুলিশ। তবে কোন মূল্যবান জিনিস খোওয়া যায় নি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং বলেন, “ইতিমধ্যেই কয়েকজন কে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। তদন্ত চলছে।”

Facebook Comments