মরেও শান্তি নেই! এক সপ্তাহ ধরে লাশ পড়ে র‌ইল কলকাতা আরজিকর মেডিকেল কলেজে

মরেও শান্তি নেই! এক সপ্তাহ ধরে লাশ পড়ে র‌ইল কলকাতা আরজিকর মেডিকেল কলেজে

বেঙ্গল রিপোর্ট, নিউজ ডেস্ক: এক সপ্তাহ ধরে শামসুর রহমান সরদারের নিথর দেহ পড়ে আছে আরজিকর মেডিকেল কলেজের লাশকাটা ঘরে। নানা অজুহাতে ছেলেটির মরদেহ আটকে রেখেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

উল্লেখ্য গত বছর আগস্ট মাসে পুলিশ গ্রেফতার করে বসিরহাট পানিতরের বাসিন্দা পেশায় ট্রাক চালক শামসুর রহমান সরদারকে(২২)। তার বিরুদ্ধে নেশার ওষুধ পাচারের অভিযোগ। যদিও পরিবারের দাবি তাদের ছেলেকে মিথ্যা ড্রাগের কেস দিয়ে ফাঁসানো হয়েছে। ঘটনাটির সত্য মিথ্যা যদিও তদন্ত সাপেক্ষ এবং বিচারাধীন তাই এ বিষয়ে আমরা কোন মন্তব্য করব না।
কিন্তু চরম অমানবিক যে বিষয়টি নিয়ে মুখ না খুললেই নয় সেটি হল, দিন‌ দশেক আগে দমদম সেন্ট্রাল জেলে (Dumdum Central Jail 769798) বিচারাধীন শামসুর রহমান সরদার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়। জেল কর্তৃপক্ষ তাকে আরজিকর মেডিকেল কলেজে(X12 ‘6 floor) ভর্তি করলে সেখানেই গত সোমবার তরতাজা ছেলেটি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে।

কিন্তু আজ এক সপ্তাহের মধ্যে শামসুরের মৃতদেহ না পোস্ট মর্টেম করা হয়েছে না এখনো পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে! আজ এক সপ্তাহ ধরে ছেলেটির পচাগলা নিথর দেহ পড়ে আছে আরজিকর মেডিকেল কলেজের লাশকাটা ঘরে। কেউ নেই পাশে। এ রাজ্যে শামসুরদের তবে কি মরেও শান্তি নেই? প্রশ্নটা কিন্তু স্বভাবতই দানা বাঁধছে জনমানসে!
রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন স্বাস্থ্য সাথীর নামে জনসংযোগ বাড়ানোর চেষ্টা করছেন তখন খোদ কলকাতার প্রধান একটি স্বাস্থ্য কেন্দ্রের এহেন বেহাল দশা সত্যিই আজ ভাবাচ্ছে। ভাবাচ্ছে এ রাজ্যে আমরা কি আদেও সুরক্ষিত?

নাম: শামসুর রহমান সরদার
পিতার নাম: কাসেদ আলী সরদার
গ্রাম ও পোস্ট: পানিতর
থানা: বসিরহাট
জেলা: উত্তর ২৪ পরগনা

Facebook Comments