ড. এ.পি.জে. আব্দুল কালাম স্মৃতি নক আউট ফুটবল প্রতিযোগিতা

ড. এ.পি.জে. আব্দুল কালাম স্মৃতি নক আউট ফুটবল প্রতিযোগিতা

সেখ রিয়াজউদ্দিন, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: বর্তমানে ডিজিটাল যুগের যুব সমাজ মোবাইল গেম এবং মাদকের নেশায় আশক্ত হয়ে পড়ছে সর্বত্র। যুব সমাজকে খেলার মাধ্যমে মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে বীরভূম জেলার দুবরাজপুর ব্লকের অন্তর্গত আদমপুর যুব সংঘের পরিচালনায় ড. এ.পি.জে. আব্দুল কালাম স্মৃতি নক আউট ফুটবল প্রতিযোগিতার সূচনা হয় গত ৩০ অক্টোবর।

শনিবার চূড়ান্ত পর্বের খেলা অনুষ্ঠিত হয়, খেলাকে ঘিরে মানুষের উৎসাহ উদ্দীপনা ছিল চোখে পড়ার মতো।বীরভূম, বর্ধমান, ঝাড়খন্ড সহ মোট ১৬ টি দল খেলায় অংশ গ্রহন করে। চুড়ান্ত পর্যায়ের খেলায় এস.এম.এস. থ্রী স্টার ঝাড়খণ্ড ও রওশন-টাঙ্কু-মিরাজ একাদশ মুখোমুখি হয়। টান টান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে এস.এম.এস. থ্রী স্টার ঝাড়খণ্ড টিমকে ২-০ গোলে পরাজিত করে বিজয়ী হয় রওশন-টাঙ্কু-মিরাজ একাদশ। বিজয়ী দলকে ট্রফি সহ নগদ ১ লক্ষ ১ হাজার ১১১ টাকা এবং বিজিত দলকে ট্রফি সহ নগদ ৭৭ হাজার ১১১ টাকা পুরস্কার প্রদান করা হয়। এদিন উপস্থিত ছিলেন দুবরাজপুর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি ভোলানাথ মিত্র, বীরভূম জেলা তৃনমূল কংগ্রেসের যুব সভাপতি দেবব্রত সাহা, দুবরাজপুর পৌরসভার প্রশাসক পীযূষ পান্ডে, দুবরাজপুর পৌরসভার প্রশাসক মণ্ডলীর সদস্য মির্জা সৌকত আলী, দুবরাজপুর পঞ্চায়েত সমিতির কৃষি কর্মাধ্যক্ষ রফিউল খাঁন, লক্ষ্মীনারায়ণপুর অঞ্চল তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি আহমেদ রেজা খান, আদমপুর যুব সংঘ ফুটবল প্রতিযোগিতার মুখ্য পরিচালক সাবির খান, গ্রাম পঞ্চায়েত সদস্য রাজুল খান সহ বহু বিশিষ্ট ব্যক্তি। রাজুল খান জানান, গত ৯ বছর ধরে আদমপুর ফুটবল ময়দানে আদমপুর যুব সংঘের পরিচালনায় এই খেলা হয়ে আসছে।

বর্তমানে যুব সমাজ নেশা গ্রস্ত হয়ে পড়ছে, তাই যুব সমাজকে খেলার মাধ্যমে মূল স্রোতে ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে আমাদের ক্ষুদ্র প্রচেষ্টা। পাশাপাশি সাবির খানও একই কথা জানান। দুবরাজপুর ব্লক তৃনমূল কংগ্রেসের সভাপতি ভোলানাথ মিত্র জানান, দু পক্ষই ভালো খেলেছে। খেলায় হার-জিত আছে। যে কোনও একটা দল তো জিতবেই তবে খেলা দেখে দর্শক সহ সকলেই মুগ্ধ।

Facebook Comments