ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের উদ্যোগে বিশ্ব আদিবাসী দিবসে ছয় দফা দাবীতে স্মারকলিপি প্রদান আদিবাসী ভবনে

ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের উদ্যোগে বিশ্ব আদিবাসী দিবসে ছয় দফা দাবীর স্মারকলিপি প্রদান আদিবাসী ভবনে

নিজস্ব সংবাদদাতা, বেঙ্গল রিপোর্ট, হুগলী: রাষ্ট্রসংঘ ঘোষিত আন্তর্জাতিক আদিবাসী দিবস উপলক্ষে আজ ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্টের পক্ষে একটি প্রতিনিধিদল ছয় দফা দাবী সম্বলিত একটি স্মারকলিপি কলকাতার নিউটাউনে আদিবাসী ভবনে রাজ্যের আদিবাসী উন্নয়ন দফতরে জমা দেন।

ইন্ডিয়ান সেকুলার ফন্টের স্মারকলিপির কপি।

প্রতিনিধিদলটির নেতৃত্ব দেন দলের চেয়ারম্যান ও বিধায়ক মোহাঃ নওসাদ সিদ্দিকী। এছাড়াও ছিলেন ফইসাল খাঁন, আসিফ ইকবাল প্রমুখ।

অনুরূপভাবে স্মারকলিপি দলের পক্ষ থেকে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগণা, হুগলি, হাওড়া, বাকুঁড়াতেও জেলাশাসক দফতরে পেশ করা হয়। উত্তর ২৪ পরগনায় ডেপুটেশনে ছিলেন রাজ্য সম্পাদক বিশ্বজিৎ মাইতি, জেলা সভাপতি তাপস ব্যানার্জি রাজ্য সহ সম্পাদক কুতুবউদ্দিন পুরকাইত, রাজ্য কমিটির সদস্য জামির হোসেন ও অন্যান্য জেলা নেতৃত্ব কর্মীবৃন্দ।

উত্তর 24 পরগনার আই এস‌ এফ প্রতিনিধি দল স্মারকলিপি প্রদান করছেন।

দক্ষিণ ২৪ পরগনায় ডেপুটেশনে ছিলেন মেঘনাথ হালদার, আব্দুল মালেক মোল্লা, ইদ্রিস আলী, বাবুলাল মোল্লা ও আনিসুর মোল্লা প্রমুখ।

দক্ষিণ 24 পরগনা জেলার ইন্ডিয়ান সেকুলার কনট্রি প্রতিনিধিরা স্মারকলিপি প্রদান করছেন।

হুগলি জেলার পক্ষ থেকে ডেপুটেশন জমা দেন জেলা সভাপতি লক্ষীকান্ত হাঁসদা, জেলা সহ-সভাপতি তাপস দাস, সাদ্দাম হোসেন, শেখ আমজাদ আলী এছাড়া শেখ নইমুদ্দীন, সৌমেন সরেন, সেখ আব্দুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

ইন্ডিয়ান সেকুলার ফন্টের হুগলী জেলার প্রতিনিধিরা স্মারকলিপি প্রদান করছেন।

হাওড়া জেলাশাসক দফতরে স্মারকলিপি জমা দেন রাজ্য অফিস সম্পাদক নাসিরউদ্দিন মীর, রাজ্য কমিটির সদস্য সেখ সাব্বির আহমেদ এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন মুজিবুর রহমান সহ অন্যান্য জেলা নেতৃত্ব।

ইন্ডিয়ান সেকুলার ফন্টের হাওড়া জেলার প্রতিনিধিরা স্মারকলিপি প্রদান করছেন।

বাঁকুড়া জেলায় স্মারকলিপি জমা দেন বাঁকুড়া জেলা নেতৃত্বের পক্ষে মিলন মান্ডি, প্রবীর মান্ডি। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন লক্ষীকান্ত রায়, গুরুদাস মুর্মু, ওপেন সরেন, দুলাল সরেন, দেবেন সরেন প্রমুখ।

মেদিনীপুর জেলার ইন্ডিয়ান সেকুলার ফন্টের প্রতিনিধিরা স্মারকলিপি প্রদান করছেন।

উল্লেখ্য, কোভিড বিধির কারণ দেখিয়ে কলকাতায় এআইএসএফ-এর রানী রাসমনি রোডের সমাবেশের অনুমতি দেওয়া হয়নি। যদিও সম্পূর্ণ বিধি মেনেই সমাবেশ করা হবে, এই মর্মে চিঠি দিয়ে প্রশাসনের কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছিল, তার পরেও আবেদন বাতিল করে দেয় রাজ্য প্রশাসন।

আই এস এফের রাজ্য সাধারণ সম্পাদক অভিযোগ করে বলেন যে, সরকার খুব কৌশলে শেষ যে করোনার বিধি-নিষেধের বিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন সেখানে সরকারি অনুষ্ঠান করার ছাড় দিয়ে বকলমে রাজ্য সরকার শাসক দলকেই একমাত্র অনুষ্ঠান করার সুযোগ করে দিয়েছে। তিনি আক্ষেপের সঙ্গে বলেন বিশ্ব আদিবাসী দিবস কি তাহলে শুধু তৃণমূল কংগ্রেসই পালন করতে পারবে অন্যান্য দলকে এই ধরনের কর্মসূচি থেকে বঞ্চিত করা হচ্ছে?
আজকের এই স্মারকলিপিতে আমাদের রাজ্যের আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় সংবিধানের পঞ্চম তফশীল লাগু করার দাবি জানিয়েছেন, আদিবাসীদের হৃদয় সমতুল্য স্থান পুরুলিয়ার অযোধ্যা পাহাড় কে ঠূড়গা প্রকল্পের মাধ্যমে আদিবাসীদের উচ্ছেদ ও সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্যকে নষ্ট করার যে ষড়যন্ত্র হয়েছে তা অবিলম্বে বন্ধ করারও দাবি জানানো হয়েছে। জঙ্গলের অধিকার সুনিশ্চিত করার জন্য ভারতীয় বন আইন – ২০০৬ কে পূর্ণ বাস্তবায়ন চায়। আদিবাসীরা সংরক্ষণের পূর্ণ সুযোগ পাচ্ছে না উল্টোদিকে উচ্চবর্ণের বা অন্যান্য উচ্চবর্গের সাধারণ ক্যাটেগরি থেকে ভুয়ো এস টি সার্টিফিকেট নিয়ে চাকরিতে সুযোগ পেয়ে যাচ্ছে, এই ভুয়া সার্টিফিকেট যারা দিচ্ছে ও নিচ্ছে তাদের বিরুদ্ধে অবিলম্বে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলা হয়েছে। সাঁওতালি ভাষা সংবিধানের স্বীকৃতি পেয়েছে প্রায় কুড়ি বছর হতে চলল অথচ এখনও আমাদের রাজ্যে একটি কার্যকরী সাঁওতালি শিক্ষা বোর্ড তৈরি করা হলো না এই শিক্ষা বোর্ড গঠনের দাবি রাখা হয়েছে স্মারকলিপিতে। এছাড়া আদিবাসী অধ্যুষিত এলাকায় কেন্দ্র সরকারের একলব্য মডেলে অ্যাংলো সাঁওতালি স্কুল গড়ারও দাবি জানানো হয়েছে।

দাবি পত্র জমা দেয়ার পর সংযুক্ত মোর্চার একমাত্র আইএসএফ বিধায়ক মোহাঃ নওশাদ সিদ্দিকী আদিবাসী সমাজের দাবিপত্রটি সরকার গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেছেন। তিনি আরো বলেন যে শুধু কিছু প্রচার কেন্দ্রিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানেই একটা জাতিকে তার অধিকার প্রদান ও উন্নতি ঘটাতে পারে না পাশাপাশি মৌলিক গঠনমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ প্রয়োজন। এই স্মারকলিপি জমা দেওয়ার পাশাপাশি রাজ্যে ভোট-পরবর্তী হিংসা নিয়েও প্রতিনিধিদলগুলি সংশ্লিষ্ট জেলাশাসকদের যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানান।

Facebook Comments