আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংকট নিরসন ও মাদ্রাসা ছাত্র ইউনিয়নকে সুসংগঠিত করার উদ্যোগ সভা প্রাক্তনীদের

আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংকট নিরসন ও মাদ্রাসা ছাত্র ইউনিয়নকে সুসংগঠিত করার উদ্যোগ সভা প্রাক্তনীদের

আরিফুল ইসলাম, বেঙ্গল রিপোর্ট, কলকাতা: বুধবার আলিয়ার প্রাক্তনীদের সভা অনুষ্ঠিত হয় আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্কসার্কাস ক্যাম্পাসে। বিভিন্ন জেলা থেকে শতাধিক প্রাক্তন ছাত্ররা যোগদান করেন এই সভায়। সভায় আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাম্প্রতিক সংকট ও তার উত্তরণের পথ কি হতে পারে সেটাই ছিল আলোচনার মূল উপজীব্য।

সভায় সভাপতিত্ব করেন আলিয়ার প্রাক্তনী ও পশ্চিমবঙ্গ ছাত্র ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠাতা ও হাসনেচা সিনিয়র মাদ্রাসার সুপারিনটেডেন্ট মাওলানা মোজাফফার হোসেন। এদিনের সভার অন্যতম আহ্বায়ক প্রাক্তনী তথা সাতুলিয়া ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসার সুপারিনটেডেন্ট মাওলানা সেখ গোলাম মঈন উদ্দিন। তিনি প্রারম্ভিক বক্তব্যে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সংকটের জন্যে আলিয়া কতৃপক্ষের আলিয়া মাদ্রাসার ঐতিহ্য ও গরিমাকে অস্বীকার ও বিলীন করার ষড়যন্ত্রের ফল বলে উল্লেখ করেন।

প্রারম্ভিক বক্তব্যের সুরে সুর মিলিয়ে উপস্থিত সকলেই বক্তব্য রাখেন। অপর আহ্বায়ক মহঃ কামরুজ্জামান বলেন প্রাক্তনদের দায়িত্বশীল ও তৎপর হলে আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংকীর্ণ দ্বন্ধ থেকে বেরিয়ে এলে মুসলিম সমাজের জন্য উচ্চ শিক্ষার পথ আরো প্রসস্থ করতে পারবেন এবং থিওলজি এবং আরবির প্রতি যথাযথ গুরুত্ব আরোপ করতে পারবেষ এক্ষেত্রে মাদ্রাসা ছাত্র ইউনিয়নকে সঠিক পথে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা আলিয়ার প্রাক্তনীদেরই নিতে হবে।

উপস্থিত সকল প্রাক্তনীদের বক্তব্যের ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত হয় ঐক্যবদ্ধ প্রাক্তনীদের উদ্দ্যোগে মাদ্রাসা ছাত্র ইউনিয়নকে শক্তিশালী রূপ দিতে হবে এবং আলিয়াতে সংখ্যালঘু সমাজের উচ্চ শিক্ষার দ্বার আরো সুদৃঢ় করতে আলিয়ার সমস্ত সংকট নিরসনে প্রচেষ্টা চালানো হবে। সভা থেকে ক্ষোভ প্রকাশ করা হয় আলিয়া মাদ্রাসার সম্পদে গড়ে ওঠা বিশ্ববিদ্যালয় মাদ্রাসা শিক্ষার সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয় অর্থাৎ থিওলজি ও আরবিকে মৃত্যু পথে ঠেলে দেওয়ার ষড়যন্ত্র বরদাস্ত করা হবেনা। প্রাক্তনীরা ময়দানে নামলে কতৃপক্ষ বুঝতে পারবে অবস্থা। আগামীতে সুদৃঢ় সুসংহত আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে আজকে সভা থেকে এই সভার চার আহ্বায়ক মহঃ কামরুজ্জামান, সেখ গোলাম মঈন উদ্দিন, আব্দুল কাহহার ও আহসানুল বারিদের সঙ্গে আরও ১১ জনকে যুক্ত করে ১৫ জনের অস্থায়ী কমিটি গঠিত হয়েছে।

বাকি ১১জন হলেন, শিক্ষক আবদুল মোমেন, শিক্ষক মাওলানা মোজাফ্ফার হোসেন, অধ্যাপক জাহান আলি পুরকাইত, শিক্ষক মাওলানা আবুল কালাম মোল্লা, শিক্ষক মাওলানা আমিনুল আম্বিয়া, শিক্ষক ড. ফজলুর রহমান মণ্ডল, মাওলানা আনিসুল আলম, শিক্ষক আতিয়ার রহমান, শিক্ষক সিয়ামত আলি, শিক্ষক মশিহুর রহমান, শিক্ষক আবু সিদ্দিক খান।

অন্যান্য যারা উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন তাদের মধ্যে উল্লেখ যোগ্য শিক্ষক মীর্জা আজিবুর রহমান, সেখ ইফতেকার হোসেন, নাজমুল আরেফিন, মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, সৈয়দ মোরশেদ আলি, আলি আকবর, মুর্শিদ হালদার, সাকিরুল ইসলাম প্রমুখরা।

Facebook Comments