বছরের শেষ দিনে তারাপীঠ মন্দিরে পুণ্যার্থীদের ঢল, কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা মন্দির কর্তৃপক্ষের

বছরের শেষ দিনে তারাপীঠ মন্দিরে পুণ্যার্থীদের ঢল, কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থা মন্দির কর্তৃপক্ষের

অমলেন্দু মন্ডল, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: আজ ২০২১ সালের শেষ দিন, এই শেষ দিনে তারাপীঠে মা তারার মন্দিরে পর্যটকদের ভিড় চোখে পড়ার মতো। বছরের শেষ সপ্তাহ থেকেই মা তারার মন্দির এ পুণ্যার্থীদের ভিড় বেড়েছে। আগামীকাল শনিবার বছরের প্রথম দিন হওয়ায় আরো ভীড় বাড়বে বলে অনুমান করছে মন্দির কর্তৃপক্ষ। সেজন্য তারাপীঠ মন্দির চত্বরে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে কভিড প্রটোকল মাথায় রেখে পূণ্যার্থীদের মাক্স ছাড়া প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে, গর্ভগৃহে শুধুমাত্র মাকে দর্শন করে পূণ্যার্থীদের পুজো নিবেদন করতে হবে। লাইনে দাঁড়িয়ে পূজা দেওয়ার সমস্ত ব্যবস্থা করা হয়েছে মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে।

মন্দির কমিটির সভাপতি তারা মুখোপাধ্যায় জানান এক সপ্তাহ থেকেই মন্দির চত্বরে ভীষণভাবে ভিড় বেড়েছে পুণ্যার্থীরা এসে মায়ের কাছে পূজা দিচ্ছেন। কিন্তু বর্তমানে করোনা ভাইরাস আবার মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে তাই তারাপীঠ মন্দির চত্বরে বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে মন্দিরের সর্বদা মাইকিং করা হচ্ছে প্রবেশদ্বারে অতিরিক্ত সিকিউরিটি নিয়োগ করা হয়েছে মাক্স ছাড়া কোন প্রার্থীকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হচ্ছে না এবং মন্দিরের ভেতরে জাতীয় পুণ্যার্থীরা মাক্স পড়ে থাকেন সে ব্যাপারে বিশেষ নজরদারি চালানো হচ্ছে পাশাপাশি স্থানীয় প্রশাসনও মন্দির কমিটির অনুরোধে বিশেষ নিরাপত্তা আয়োজন করেছেন।

সব মিলিয়ে কাল শনিবার এবং রবিবার মন্দির চত্বরে মাতারা কে পুজো দেওয়ার জন্য পূণ্যার্থীদের ভিড় আরো বাড়বে আমরা মন্দির কমিটির পক্ষ থেকে এবং সাধারন প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকল পুণ্যার্থীদের কে তারাপীঠ মন্দিরের স্বাগত জানাই এবং প্রত্যেকের কাছে অনুরোধ তারা যাতে কভিড বিধি মেনে মা তারর পুজো দেন এবং মনস্কামনা জানান। ২০২০ সাল থেকে লকডাউনের জন্য বেশিরভাগ সময়ই মন্দির বন্ধ ছিল, তারপরে আস্তে আস্তে স্বাভাবিক হওয়ায় তারাপীঠ মন্দিরে ভিড় বেড়েছে এবারেও নতুন বছরে তারাপীঠ মন্দিরে ভিড় বাড়তে শুরু করেছে তাই যাতে আবার আগের পরিস্থিতি না হয় সেদিকে নজর রেখেই মন্দির কমিটি বিশেষ ব্যবস্থা অবলম্বন করেছে প্রত্যেক পুণ্যার্থীদের কাছে আবেদন তারা যেন কোভিদ পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখে সুস্থভাবে সুন্দরভাবে বছরের প্রথম দিনে মা তারার কাছে এসে তাদের প্রার্থনা মনস্কামনা জানিয়ে দেন।

Facebook Comments