পুরুষকেই জাগতে হবে সবার আগে: কলমে তামিমা মল্লিক

পুরুষকেই জাগতে হবে সবার আগে: কলমে তামিমা মল্লিক

পাঠকের কলমে বেঙ্গল রিপোর্ট: পুরুষকেই জাগতে হবে সবার আগে। তাদের বুঝতে হবে, নারীর পোশাক বা অন্য কিছু নয়, পুরুষের অনিয়ন্ত্রিত ও বিকৃত যৌন আকাঙ্ক্ষাই ধর্ষণের সবচেয়ে বড় কারণ এবং পুরুষের সবচেয়ে বড় অসুস্থতা।

অনেক তো হলো, আর কত? এবার জাগুন পুরুষ বন্ধুরা। এতটুকু সৎ সাহস দেখান। লাগাম পড়ান নিজের বিকৃত যৌনাকাঙ্ক্ষায়। যতদিন পর্যন্ত না আপনারা নিজেরা নিজেদের বিরুদ্ধে দাঁড়াবেন, ততদিন ধর্ষণের এই মহামারী বন্ধ হবে না। যতই আইন হোক, যতই কঠোর থেকে কঠোরতর শাস্তির বিধান রাখা হোক, যতই বিশ্বব্যাপী আন্দোলন করুক, যতই মোমবাতি জ্বালিয়ে মিছিল করুন, কিছুই হবেনা। নিজেই ভাবুন এইদেশে একটা দিনও বাদ যায়না যেদিন কোন ধর্ষণের ঘটনা পত্রিকার পাতায় প্রকাশ হয় না। আর অপ্রকাশিত শত শত ঘটনার কথা না হয় বাদই দিলাম। তবুও কি কমেছে এই ধর্ষণ লীলা। বৃহত্তর আন্দোলন দানা বাঁধতে মানুষের লাভ ক্ষতির হিসাব আর আবেগের মিসাল লাগে। ধর্ষণের প্রতিবাদে এই দুটোরই অভাব আছে। ধর্ষণ এই সমাজের কাছে কেবলই ধর্ষণের শিকার নারী আর তার পরিবারের ব্যক্তিগত বিষয়।

এই সমাজের ধর্ষকদের সাজা হলো, কয়েক মাস/বছর, তারপর তারা আজাদ সৈনিকের মতো বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেড়াচ্ছে, ভাবছে, নিজে একজন বীর সৈনিক, আর এই এদের মদত করছেন, এই সমাজের কিছু,নেতা,এই দেশের আইন।

আজ যদি এই দেশের আইন ঠিক থাকতো, তাহলে হয়তো, এভাবে অকালে প্রাণ হারাতো না, ঐ ছোট্ট আসিফা, পূজার মত নিষ্পাপ শিশুরা, যারা এখনও বোঝোও না, এই যৌনতা কি!

আজ হয়তো জয়নগরের রিম্পা, উত্তর প্রদেশের মনীষা বাল্মীকি কে এভাবে নিশংস ভাবে গ্যাং রেপ, হয়ে অকালে প্রাণ দিতে হত না। তাই এই দেশের আইন যাতে এই রেপিস্টদের, মৃত্যুদন্ড সাজা দেন, তার জন্য, গনআন্দলোন করুন, যাতে, আমি আপনি, আপনার মেয়ে, ঐ গ্যাং রেপিস্টদের কবলে না পড়ি, আর ঐ রেপিষ্টরাও কোনো মেয়ে রেপ করার কথা, ভাবার আগে, দেশের আইনের কথা ভেবে আঁতকে উঠে।

প্রতিবাদী নারী তামিমা মল্লিক

লিখেছেন, প্রতিবাদী নারী তামিমা মল্লিক, ডানকুনি: হুগলী

Facebook Comments