নলহাটী থানার ওসি ও অনুব্রত মণ্ডলকে হুমকির অভিযোগে রামপুরহাট থানায় হাজিরা বিজেপির জেলা সভাপতির

নলহাটী থানার ওসি ও অনুব্রত মণ্ডলকে হুমকির অভিযোগে রামপুরহাট থানায় হাজিরা বিজেপির জেলা সভাপতির

অমলেন্দু মন্ডল, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভুম: নোটিশ দিয়ে থানায় হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলো বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডলকে। সেই মতো আজ বীরভূমের রামপুরহাট থানায় হাজিরা দিলেন বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডল।

গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর বীরভূমের রামপুরহাট মহকুমা শাসকের দফতরের সামনে বিজেপির ধর্নামঞ্চ থেকে নলহাটি থানার ওসিকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ ওঠে শ্যামাপদ মণ্ডলের বিরূদ্ধে।

একই মঞ্চ থেকে তৃণমূল কংগ্রেসের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলকে হুমকি দেওয়ার অভিযোগে বিজেপির বীরভূম জেলা কমিটির সদস্য মানস ভট্টাচার্যের নামে রামপুরহাট থানায় অভিযোগ দায়ের করে এক তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী।

অভিযোগ পেয়ে মামলা শুরু করেছে রামপুরহাট থানার পুলিশ। গত ৪ঠা সেপ্টেম্বর রাজ্য জুড়ে বিভিন্ন মহকুমা শাসকের দফতরের সামনে গনতন্ত্র বাঁচানোর দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভ করে বিজেপি। সেই মঞ্চ থেকে বীরভূম জেলার তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি অনুব্রত মন্ডলকে মৃত্যুভয় কি সেটা দেখানোর হুমকি দেয় বিজেপির বীরভূম জেলা কমিটির সদস্য মানস ভট্টাচার্য। এবং নলহাটি থানার ওসিকে দেখে নেওয়ার হুমকি দেন বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডল। সেই ঘটনার পরিপেক্ষিতে রামপুরহাট থানায় অভিযোগ দায়ের করেন তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী তোতা সেখ।

এর আগে মানস রায়কে পর পর দুদিন রামপুরহাট থানায় প্রায় বারো ঘন্টা করে আটকে রেখে জেরা করে রামপুরহাট থানার পুলিশ। পরে রামপুরহাট মহকুমা আদালতে আত্মসমর্পণ করলে তার জামিন মঞ্জুর হয়। ওই একই মামলায় আজ রামপুরহাট থানায় হাজিরা দিলেন বিজেপির বীরভূম জেলা সভাপতি শ্যামাপদ মন্ডল। হাজির দেওয়ার সময় জেলার বিভিন্ন এলাকার বিজেপির নেতা কর্মীরা রামপুরহাট থানার সামনে হাজির হয়েছিলেন।

Facebook Comments