ত্রিপুরায় লাগাতার সংখ্যালঘু ও ধর্মীয় স্থানে হামলার প্রতিবাদে ত্রিপুরা ভবনে স্মারকলিপি দিলেন নৌশাদ সিদ্দিকী

ত্রিপুরায় লাগাতার সংখ্যালঘু ও ধর্মীয় স্থানে হামলার প্রতিবাদে ত্রিপুরা ভবনে স্মারকলিপি দিলেন নৌশাদ সিদ্দিকী

 

নিউজ ডেস্ক, বেঙ্গল রিপোর্ট, কোলকাতা: ত্রিপুরায় লাগাতার সংখ্যালঘু সম্প্রদায় ও ধর্মীয় স্থানে হামলার প্রতিবাদ জানাতে ত্রিপুরা ভবনে আইএসআই চেয়ারম্যান বিধায়ক নৌশাদ সিদ্দিকী।

 

স্মারকলিপি দিয়ে এসে আইএসএফ চেয়ারম্যান তথা বিধায়ক নৌশাদ সিদ্দিকী সাংবাদিকদের বলেন, ত্রিপুরা জ্বলছে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ গত এক সপ্তাহ ধরে উগ্র মৌলবাদীরা ঐ ছোট্ট রাজ্যজুড়ে বহু মসজিদ ও সংখ্যালঘু মুসলমানদের ঘরবাড়ি, দোকানপাট, সম্পত্তি ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজ করে চলেছে। ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট এই ঘটনায় গভীর উদ্বিগ্ন।

আমরা আজ ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্য একটি স্মারকলিপি কলকাতাস্থিত ত্রিপুরা ভবনে ঐ রাজ্যের রেসিডেন্ট কমিশনারের অফিসে জমা দেওয়া হয়েছে। স্মারকলিপি জমা দেন আইএসএফ বিধায়ক মোহাম্মদ নওসাদ সিদ্দিকী, সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন আইএসএফ রাজ্য সাধারণ সম্পাদক বিশ্বজিৎ মাইতি ও অফিস সম্পাদক নাসিরউদ্দিন মীর। স্মারকলিপি জমা দেওয়ার পর চেয়ারম্যান মোহাম্মদ নওসাদ সিদ্দিকী এই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি করেন।

 

ত্রিপুরা রাজ্যসরকারকে দাবি জানানো হয়েছে অবিলম্বে এই হিংসাত্মক কার্যকলাপ বন্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে।

আমরা বলেছি সংবিধানের ২৫ নম্বর ও তৎপরবর্তী ধারাগুলি মোতাবেক মানুষের নিজ নিজ ধর্মপালনের অধিকারকে বহাল রাখার বিষয়ে উদ্যোগ নিতে। আমাদের দাবি এই সমস্ত ঘটনার তদন্তের জন্য কোন অবসরপ্রাপ্ত সুপ্রিম কোর্ট অথবা হাইকোর্টের বিচারপতির নেতৃত্বে উচ্চপর্যায়ের কমিটি গঠন। এই তদন্ত কমিটির ক্ষমতা থাকবে অপরাধীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদানের।

 

 

আমরা আরোও দাবি জানিয়েছি ক্ষতিগ্রস্তদের উপযুক্ত ক্ষতিপূরণের। মসজিদগুলিরও সঠিক ক্ষতিপূরণের ব্যবস্থা করার দাবি স্মারকলিপিতে করা হয়েছে। পাশাপাশি, সংসদে এই সংক্রান্ত Prevention of Communal and Targeted Violence (Access to Justice and Reparations) বিল যাতে শীঘ্রই পেশ করে আইনে পরিনত করা হয়, সে বিষয়েও আমরা সংশ্লিষ্ট সকলকে উদ্যোগ গ্রহনের দাবি জানিয়েছি।

 

 

Facebook Comments