এনআইএ দ্বারা মুর্শিদাবাদ ও এরনাকুলাম থেকে ৯ মুসলিম যুবকের সাম্প্রতিক গ্রেপ্তার অত্যন্ত সন্দেহজনক: ফ্রাটারনিটি মুভমেন্ট

এনআইএ দ্বারা মুর্শিদাবাদ ও এরনাকুলাম থেকে ৯ মুসলিম যুবকের সাম্প্রতিক গ্রেপ্তার অত্যন্ত সন্দেহজনক: ফ্রাটারনিটি মুভমেন্ট

বেঙ্গল রিপোর্ট ডিজিটাল ডেস্ক: এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ছাত্র যুব সংগঠন ফ্রাটারনিটি মুভমেন্টের সভাপতি ড: আনসার আবুবক্কর বলেন, এনআইএ-র ক্রিয়াকলাপ, বক্তব্য এবং গল্পগুলিতে নাগরিক সমাজের অন্ধ বিশ্বাস দেশের সামাজিক অবকাঠামোতে সমস্যা বয়ে আনতে পারে। এনআইএ কর্তৃক বিগত গ্রেপ্তারির ঘটনা এবং আদালতে তাদের কার্যক্রম, তাদের বানানো গল্প সমাজের সামনে তাদের মিথ্যাচার প্রমাণের জন্য যথেষ্ট। এমন অনেকগুলি মামলা হয়েছে যেখানে এনআইএ কেবল সন্দেহের বশেই দলিত, মুসলিম এবং আদিবাসী অসংখ্য মানুষকে গ্রেপ্তার করেছে এবং দীর্ঘ বছরের অন্যায় কারাভোগের পরে তারা মুক্তি পেয়েছে। “বিচারের অধীনে” থাকার অজুহাতে বাকিরা বছরের পর বছর জেল হাজতে রয়েছেন। এনআইএর ইতিহাসের আলোকে সাম্প্রতিক গ্রেপ্তার নিয়ে সুশীল সমাজের প্রশ্ন উত্থাপন করা উচিত বলে।

এজেন্সিটির অন্ধভাবে বানোয়াট গল্প এবং বক্তব্যকে সমর্থন করা মিডিয়া এবং রাজনৈতিক দলগুলির নিন্দনীয় কাজ।

গ্রেপ্তারকৃত আসামিরা পশ্চিমবঙ্গের মুর্শিদাবাদ জেলার সবচেয়ে পিছিয়ে পড়া গ্রামের বাসিন্দা। তাদের মধ্যে তিনজনকে কেরালার কর্মস্থল থেকে এবং অন্যদের মুর্শিদাবাদে তাদের বাড়ি থেকে তুলে নেওয়া হয়েছে। এনআইএ যে যুক্তি তুলে ধরেছে তা ভারতীয় সুরক্ষা ব্যবস্থার জন্য একটি উপহাস মাত্র। এটি স্পষ্টভাবে লক্ষণীয় যে, মুসলিম যুবকদের জীবন নিয়ে খেলা করে পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরালার আসন্ন নির্বাচনগুলিকে প্রভাবিত করা বিজেপির এই একমাত্র রাজনৈতিক চালাকি।

বিরোধী দলগুলি সংঘ পরিবারের ফাঁদে পা দিয়ে নিপীড়িত জনগোষ্ঠী সম্বন্ধে একই ধারণা পোষণ করে । গণমাধ্যম এই মামলার সন্দেহজনক পরিস্থিতি নিয়ে প্রশ্ন উত্থাপনের পরিবর্তে গ্রেপ্তারকৃতদের সম্পর্কে চাঞ্চল্যকর গল্প তৈরি করে এই কাজগুলিকে জোর দিয়েছে। সুশীল সমাজ ও শিক্ষিত যুবকদের এগিয়ে আসা এবং যথাযথ তদন্ত ও বিচার বিভাগীয় হস্তক্ষেপের দাবি করা এখন গণতান্ত্রিক দায়িত্ব।

Facebook Comments