সিডনি টেস্টের প্রাক্কালেই এবার চতুর্থ টেস্ট নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি

সিডনি টেস্টের প্রাক্কালেই এবার চতুর্থ টেস্ট নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি

ডিজিটাল ডেস্ক, বেঙ্গল রিপোর্ট: সিডনি টেস্টের প্রাক্কালেই এবার ব্রিসবেনে আয়োজিত হতে চলা চতুর্থ টেস্ট ঘিরে দেখা দিল অনিশ্চয়তার কালো মেঘ। কারণ গাব্বায় নামার আগে আবারও কঠোর কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হতে পারে ভারতীয় দলকে। যা নিয়ে এবার আলোচনাতেও বসতে পারে দু’‌দেশের বোর্ড।

সূচি অনুযায়ী, গাব্বায় টিম ইন্ডিয়ার চতুর্থ টেস্ট ১৫ জানুয়ারি। কিন্তু কুইন্সল্যান্ডে সম্প্রতি করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি মেলবোর্ন টেস্ট গ্রাউন্ডকে কোভিড হটস্পট হিসেবেও চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই অজি প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, রাহানেদের সিডনি টেস্টের পর ব্রিসবেনে গিয়ে আরও কঠোর কোয়ারেন্টাইনে থাকতে হবে। এদিকে, টিম ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়, সম্প্রতি দলের প্রত্যেকের কোভিড টেস্ট করা হয়েছে, তাতে কারওরই রিপোর্ট পজিটিভ আসেনি। তাই আর কোয়ারেন্টাইনে থাকবেন না টিম ইন্ডিয়ার খেলোয়াড়রা।

এই পরিস্থিতিতে ব্রিসবেনে অজি প্রশাসন কোয়ারেন্টাইনের নিয়মে কোনওরকম বদল না ঘটালে সিডনিতেই আয়োজিত হোক চতুর্থ টেস্ট। অন্যথায় দেশে ফিরে আসবেন রাহানেরা। সেই হুঁশিয়ারিও দিয়ে দেওয়া হয় ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে। তবে সূত্রের খবর, এই সপ্তাহের মধ্যেই গোটা বিষয়টি নিয়ে ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার কাছ থেকে লিখিতভাবে জবাব চাইবে বিসিসিআই। ক্রীড়া বিশেষজ্ঞদের মতে, পুরোটাই আসলে অজি মিডিয়া এবং অজি প্রশাসনের চাপ তৈরির কৌশল। কারণ মেলবোর্নে কোহলি–ইশান্ত–শামি ছাড়াই তাঁদের হারিয়েছে টিম ইন্ডিয়া। সিডনিতে হারলে ট্রফি জিততে পারবে না অস্ট্রেলিয়া। তাই এই উপায় অবলম্বন।

এমনকী প্রায় এক মাস আগে ডিসেম্বরের শুরুতে নাকি একটি দোকানে কেনাকাটা করতে গিয়ে নিয়মভঙ্গ করেছিলেন খোদ ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি এবং হার্দিক পাণ্ডিয়া!‌ সেই খবরও প্রকাশিত হয়েছিল কয়েকদিন আগে। তবে ওই ঘটনাকে শুরু থেকেই গুরুত্ব দেয়নি ভারতীয় টিম ম্যানেজমেন্ট। পরবর্তীতে ওই দোকানের মালিকও জানিয়ে দেন, কোনও নিয়মই ভঙ্গ করেননি কোহলিরা। সেসময় কোভিড সংক্রান্ত যাবতীয় নিয়মই মেনে চলেছেন দুই ক্রিকেটার। নিজের দেশের সংবাদমাধ্যমের সমালোচনাও করেন তিনি।

Facebook Comments