দ্রুত স্বাস্থ্য সাথী কার্ড হাতে পেয়েই সুচিকিৎসা পেলো আমডাঙার পারভীন

দ্রুত স্বাস্থ্য সাথী কার্ড হাতে পেয়েই সুচিকিৎসা পেল আমডাঙার পারভীন

নিজস্ব প্রতিনিধি, বেঙ্গল রিপোর্ট, বারাসাত: উত্তর ২৪ পরগনার আমডাঙার খেরু গ্রামের পারভীন সুলতানা বিবির স্বামী কুতুবুদ্দিন গত কয়েকদিন পূর্বে শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে মধ্যমগ্রামের এক বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি হন। আর্থিক ভাবে পিছিয়ে পড়া ওই পরিবারের স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য পরিবারের তরফ থেকে উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের বনভূমি কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। হতদরিদ্র ওই পরিবারের তৎক্ষণাৎ পরিষেবা প্রদানের জন্য জেলা কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ তার স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর ব্যবস্থা করে দেন।

সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে এ কে এম ফারহাদ বলেন আমডাঙার ওই পরিবারের লোক স্বাস্থ্য সাথী কার্ড এর জন্য আমার সঙ্গে যোগাযোগ করেন। তারপর আমি উত্তর ২৪ পরগনা জেলার এডিএম টি তাহিরুজ্জামান যিনি এই জেলার স্বাস্থ্য সাথীর নোডাল অফিসার, তার সঙ্গে যোগাযোগ করি। তাতে অতিসত্বর ঐ পরিবারটি স্বাস্থ্য সাথী কার্ড পেতে পারে। এরপর এডিএম টি তাহিরুজ্জামান ওই মহিলাটির কার্ড পাওয়ার বিষয়ে সমস্ত রকম ব্যবস্থা করে দেন।

তিনি বিডিও থেকে শুরু করে সমস্ত স্তরে কথা বলে সমস্ত কাগজপত্র নিয়ে সত্ত্বর ওই পরিবারের হাতে কার্ড তুলে দেন। আমি এর জন্য সমস্ত কৃতিত্ব উত্তর ২৪ পরগনা জেলার এডিএম টি তাহিরুজ্জামান কে দিচ্ছি। কারণ তার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এটি সম্ভব হয়েছে। তিনি জেলার ডিএম থেকে শুরু করে বিভিন্ন এডিএম বা প্রশাসনিক আধিকারিক দের কাজের প্রভূত প্রশংসা করেন।

এই দুঃসময়ে স্বাস্থ্য সাথীর কার্ড পেয়ে আমডাঙার ওই পরিবারে দুঃখের দিনেও হাসি ফুটে উঠেছে। পারভিনার বক্তব্য আমার স্বামীর চিকিৎসার জন্য লক্ষাধিক টাকার প্রয়োজন ছিল। যা এই মুহূর্তে জোগাড় করা আমার পক্ষে সম্ভব ছিল না।

এই দুঃসময়ে সরকারের পক্ষ থেকে আমরা যে সাহায্য পেয়েছি তা কোনদিন ভুলতে পারব না। এ কারণে তিনি জেলা কর্মাধ্যক্ষ এ কে এম ফারহাদ এডিএমটি তাহিরুজ্জামান সহ বিশেষত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

Facebook Comments