রাজনৈতিক নেতাদের দায়িত্বজ্ঞান থাকতে হয়, শুভেন্দুর নাম না করে হলদিয়ায় বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়

রাজনৈতিক নেতাদের দায়িত্বজ্ঞান থাকতে হয়, শুভেন্দুর নাম না করে হলদিয়ায় বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়

সুব্রত গুহ, বেঙ্গল রিপোর্ট, পূর্ব মেদিনীপুর: পূর্ব মেদিনীপুরের মহিষাদলে শুভেন্দু অধিকারীর সভার পাশাপাশি জেলার শিল্পশহর হলদিয়াতে শুক্রবারই শুভেন্দু অধিকারীকে বাদ দিয়ে প্রাদেশিক নেতাদের নিয়ে দীর্ঘদিন পরে মিছিল ও পথসভার আয়োজন করে তৃনমূল।

আর সেই সভা থেকে বিজেপিকে আক্রমনের পাশাপাশি নাম না করে শুভেন্দু অধিকারীকে আক্রমন করলেন তৃনমূল নেতারা। সভায় বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় শুভেন্দু অধিকারীর নাম উল্পেখ না করে বলেন, রাজনৈতিক নেতাদের দ্বায়িত্বজ্ঞান থাকার প্রয়োজন। অনেকে আছে শুধু শাসন করে গেছে, রাজনৈতিক নেতা হলে অনেক দায়িত্ব জ্ঞান থাকতে হবে।

“এখানেই থেমে না থেকে মন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় হলদিয়ার মানুষদের উদ্দেশ্যে বলেন,” যারা কু কথা বলছে তাদেরকে বর্জন করতে হবে। পাশাপাশি দলের কর্মীদের সকলকে এক হয়ে থাকতে হবে।” একই সাথে রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “উন্নয়ন নিয়ে কাউকে বলতে হবেনা। কারন রাজ্যের প্রতিটা প্রান্তে প্রতিটা বাড়িতে মমতা ব্যানার্জীর নেতৃত্বাধীন রাজ্য সরকারের ৬৪ টা প্রকল্পের কোন না কোন সুবিধা পৌঁছে গেছে। আর এটা একমাত্র মমতা ব্যানার্জীর পক্ষেই সম্ভব। কারন সারা দিনের ২৪ ঘন্টা একমাত্র মমতা  ব্যানার্জীই মানুষের সাথে থাকেন।”

রবিবার বিকালে পূর্ব মেদিনীপুর জেলার শিল্প শহর হলদিয়ার সিটি সেন্টারে যুব তৃণমূলের সভায় শুধু বনমন্ত্রী রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায় ছাড়াও হাজির দমকল মন্ত্রী সুজিত বসুও শুভেন্দু অধিকারীর নাম না নিয়ে নন্দীগ্রাম আন্দোলনে মমতা ব্যানার্জীর অবদানের কথা শুনিয়েছেন। দাবী করেন, বাংলায় ৩৪ বছরের বাম অপশাসনের মুক্তিসূর্য মমতা ব্যানার্জী। দিনকয়েক আগে হলদিয়ায় সভা করে গিয়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।সেই সভার পাল্টা সভার আয়োজন করে যুব তৃনমূল কংগ্রেস।

দুই মন্ত্রী ছাড়াও হলদিয়া শিল্পাঞ্চলের তৃনমূল ও যুব তৃনমূল কংগ্রেসের নেতারা হাজির ছিলেন। সভার আগে হলদিয়ার কদমতলা থেকে সিটি সেন্টার অবধি কয়েক হাজার দলীয় কর্মী সমর্থকদের নিয়ে মিছিল হয়।

Facebook Comments