আয়াসোফিয়ায় ইমাম ও মুয়াজ্জিন নিয়োগ করেছে প্রেসিডেন্ট এরদোগান

ফাইল চিত্র

আয়াসোফিয়ায় ইমাম ও মুয়াজ্জিন নিয়োগ করেছে প্রেসিডেন্ট এরদোগান

ডিজিটাল ডেস্ক, বেঙ্গল রিপোর্ট: আয়াসোফিয়া মসজিদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে দুই ইমাম ও চার মুয়াজ্জিনকে। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তুরস্কের ধর্মবিষয়ক অধিদফতরের প্রধান অধ্যাপক ড. আলি আরাবাশ। গত ১০ জুলাই তুরস্কের সর্বোচ্চ আদালত আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রূপান্তরের রায় দেয়। ধর্মবিষয়ক অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে আগামী ২৪ জুলাই শুক্রবার থেকে তাতে নিয়মিত নামাজ শুরু হবে।

রোমের সম্রাট জাস্টিনিয়ান প্রথম এর রাজত্বকালে ৫৩৭ খ্রিস্টাব্দে আয়াসোফিয়াকে গির্জা হিসেবে নির্মাণ করা হয়। ১৪৫৩ সালে সুলতান মুহাম্মাদ আল ফাতেহ পাদ্রিদের কাছ থেকে কিনে নিয়ে আয়াসোফিয়াকে মসজিদে রুপান্তরিত করেন। প্রায় ৫০০ বছর মসজিদ থাকার পর ১৯৩৪ সালে একটি কালো আইনের মাধ্যমে সেই ঐতিহাসিক মসজিদকে যাদুঘরে রূপান্তরিত করে তৎকালীন ইসলাম বিদ্বেষী কামাল আতাতুর্কের সরকার। ৮৬ বছর পর তুরস্কের সর্বোচ্চ আদালত কামালের সেই কালো আইন বাতিল করে। আইন বাতিল হওয়ার পর সেদিনই আয়াসোফিয়াকে পুনরায় মসজিদে রূপান্তরিত করার ঘোষণা দেন প্রেসিডেন্ট এরদোগান। তিনি জানান আগামী ২৪ জুলাই আয়াসোফিয়ায় জুম’আর নামাজ অনুষ্ঠিত হবে।

আয়াসোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করার ঘোষণার পর আল-আকসা মসজিদকে মুক্ত করার বার্তা দেয়া হয়েছে তুর্কি প্রেসিডেন্টের ওয়েবসাইটে। বলা হয়েছে, আয় সোফিয়ার পুনরুত্থান হলো বিশ্বজুড়ে মুসলমানদের আবারো কতৃত্বের প্রথম পদক্ষেপ…আয়া সোফিয়ার এই উত্থান নিপীড়িত, শোষিত মুসলমানদের আশার আলো। ভাষণটির আরবি অংশে বলা হয়েছে, আয়াসোফিয়াকে মসজিদে পরিণত করা আল-আকসা মুক্তির অংশ। জেরুসালেম বা আল কুদ্‌স পুরানো শহর যেখানে আল-আকসা মসজিদ রয়েছে তা নিয়ন্ত্রণ থেকে ইসরাইলকে বিতাড়িত করার ইঙ্গিত দেয়া হয়েছে।

সূত্র : জেরুসালেম পোস্ট

Facebook Comments