উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা পরিষদের বনভূমি দফতরের পক্ষ থেকে জেলার বাইশটি ব্লকে কম্পিউটার প্রিন্টার প্রদান

উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা পরিষদের বনভূমি দফতরের পক্ষ থেকে জেলার বাইশটি ব্লকে কম্পিউটার প্রিন্টার প্রদান

মাহমুদুল হাসান, বেঙ্গল রিপোর্ট, উত্তর চব্বিশ পরগনা: উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা পরিষদের বন ও ভূমি দপ্তর এর কর্মাধ্যক্ষ এ কে এম ফারহাদ ও জেলা প্রশাসনের যৌথ উদ্যোগে ও প্রয়াসে, জেলার বাইশটি ব্লকের বিএলএলআরও অফিসকে কম্পিউটার প্রিন্টার প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানের প্রধান আয়োজক উত্তর চব্বিশ পরগনা জেলা পরিষদের বনভূমি কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ এর তত্ত্বাবধানে এই প্রদান অনুষ্ঠান পরিচালনা করা হয়। আজকের এই অনুষ্ঠান টি জেলা পরিষদের তীতুমীর সভা কক্ষে সম্পন্ন হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন উত্তর চব্বিশ পরগনার জেলাশাসক চৈতালি চক্রবর্তী। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা শাসক (ভূমি) ইউনুস রিচিং ইসমাইল, অতিরিক্ত জেলাশাসক (উন্নয়ন) শংকর প্রসাদ পাল, জেলা পরিষদের সচিব পিনাকি বাবু প্রমুখ।

জেলাশাসক চৈতালি ভট্টাচার্য বলেন এটা অত্যন্ত একটি ভালো উদ্যোগ যা কিনা প্রশংসার যোগ্য, এর ফলে অফিস গুলোতে কাজের গতি বৃদ্ধি পাবে। তিনি উপস্থিত বিএলএলআরও দের উদ্দেশ্যে বলেন, এই অতিমারির সময়ে স্বাস্থ্যসচেতনতায় সকলকেই গুরুত্ব দিতে হবে। স্যানিটাইজার মাক্স ইত্যাদির ব্যবহারোর জন্য শুধুমাত্র পুলিশ বা বিডিও দের ওপর দায়িত্ব ছেড়ে দিলে হবে না, সকলকেই এর জন্য দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে।

কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ তার বক্তব্যের মাধ্যমে বলেন, ভূমি ও রাজস্ব দপ্তর এর কাজকে আরও ত্বরান্বিত করতে বিএলএলআরও অফিস গুলোকে আজকে কম্পিউটার প্রিন্টার প্রদান করা হয়েছে। যাহাতে তাদের কাজে গতি বৃদ্ধি হয়। তিনি বলেন আমরা বাংলার গর্ব মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে কাজ করি, তার দেখানো পথে আমরা ইতিপূর্বে বনসৃজন প্রকল্পে কাজ করছি। সাথে সাথে বিভিন্ন সরকারি অফিস গুলোকে আধুনিকিকরন করতে বা বিভিন্ন হসপিটাল গুলিকে আধুনিক করে তুলতে আমরা সেখানে কাজ করে চলেছি।

অন্য দিকে রাজ্যের সবচেয়ে বড় আয়ের উৎস রাজস্ব দফতরের রাজস্ব আদায় আরো বেশি করে করার জন্য সব রকমের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে। এরপর তিনি আরও বলেন আমরা মুখ্যমন্ত্রীর সৈনিক, তিনি যেভাবে আমাদের পথ দেখান আমরা সেভাবেই কাজ করি।

Facebook Comments