মুসলমানদের ক্ষেপিয়ে তুলতে সুইডেনে ইচ্ছাকৃতভাবে কুরআন অবমাননা করা হয়েছে: ওআইসি

মুসলমানদের ক্ষেপিয়ে তুলতে সুইডেনে ইচ্ছাকৃতভাবে কুরআন অবমাননা করা হয়েছে: ওআইসি

বেঙ্গল রিপোর্ট, আন্তর্জাতিক ডেস্ক: সুইডেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় মালমো শহরে উগ্রপন্থী ইসলামবিদ্বেষীদের‌ মহাগ্রন্থ আল কুরআন পোড়ানোর কড়া নিন্দা জানিয়েছে ইসলামি সহযোগিতা সংস্থা ওআইসি। মুসলিমদের ক্ষুব্ধ করতে ইচ্ছাকৃতভাবে এ উসকানিমূলক অপরাধ সংঘটিত করা হয়েছে।
রোববার এক বিবৃতিতে এমন মন্তব্য করে ওইআইসির মহাসচিবের দফতর।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা বিশ্বব্যাপী উগ্রবাদ এবং ধর্ম ও বিশ্বাসের ওপর ভিত্তি করে সৃষ্ট ঘৃণার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। মুসলমানদের ক্ষেপিয়ে তুলতে ইচ্ছাকৃতভাবে কুরআনের প্রতি এই ধরনের অবমাননা করা হয়েছে।

শুক্রবার মালমো শহরের কেন্দ্রস্থলে ইসলামবিদ্বেষীরা পবিত্র কুরআনে আগুন ধরিয়ে দেয়ার পর সেখানকার অভিবাসী অধিবাসীরা এর প্রতিবাদে রাস্তায় নেমে আসেন। তাদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়। সুইডেনের পুলিশ বলছে, প্রায় ৩০০ মানুষ প্রতিবাদ বিক্ষোভে অংশ নেয়।

উল্লেখ্য, গত শুক্রবার মুসলমানদের ধর্মীয় গ্রন্থ পবিত্র কুরআনুল কারীম পোড়ানোর অভিযোগে সুইডেনের দক্ষিণ প্রান্তে অবস্থিত মালমো শহরে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। শহরটিতে ভাংচুর-অগ্নিসংযোগ এবং পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ার ঘটনা ঘটেছে। জানা গেছে, রাসমুস পলদান নামে একজন কট্টরপন্থী নেতার সুইডেনের মালমো শহরে একটি বৈঠক করার কথা ছিল। কিন্তু, তাকে সেই বৈঠক করতে দেওয়া হয়নি। আবার কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা জানায়, মালমো শহরে তিনি যাতে বৈঠক করতে না পারেন তাই তাকে আটক করেছিল পুলিশ। এর জেরে তার অনুগামীরা পবিত্র কুরআন পুড়িয়ে ফেলেছে বলে অভিযোগ। আর এই ঘটনার খবর ছড়িয়ে পড়তেই উত্তপ্ত হয়ে পড়ে শহরটি।

অন্যদিকে পবিত্র কোরআনে আগুন দেয়ার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সুইডেনের কর্তৃপক্ষকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ওআইসি।

সূত্র:- ইনসাফ ২৪

Facebook Comments