চলে গেলেন বীরভূমের প্রাচীন রাজধানী ও ঐতিহাসিক কেন্দ্র রাজনগরের রাজাসাহেব

চলে গেলেন বীরভূমের প্রাচীন রাজধানী ও ঐতিহাসিক কেন্দ্র রাজনগরের রাজাসাহেব

বিশেষ সংবাদদাতা, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: রাজ্য পাট না থাকলেও তিনি ছিলেন ‘রাজা’, তাঁর মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন অতীতের’ রাজধানী’ রাজনগর। চলে গেলেন একদা বীরভূমের প্রাচীন রাজধানী ও ঐতিহাসিক কেন্দ্র রাজনগর এর রাজাসাহেব৷ রাজ্য পাট না থাকলেও সাধারণ মানুষের কাছে তিনি পরিচিত ছিলেন রাজা বাবু, রাজা তথা রাজা সাহেব নামে৷ বার্ধক্য জনিত রোগে ভুগছিলেন৷ ২৫ এপ্রিল ভোরে রাজনগর রাজবাটীতে নিজ বাসভবনে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন৷ বয়স হয়েছিল প্রায় নব্বই বছরের কাছাকাছি৷ তাঁর পুত্র,কন্যা ও নাতি নাতনিরা বর্তমান৷ তাঁকে হারিয়ে রাজা বিহীন রাজনগর৷

Deenikart Halal Store

 

তাঁর পুরো নাম ছিল মহঃ রফিকুল আলম খান৷ রাজনগর থানা শান্তি কমিটি, রাহে ইসলাম সমাজকল্যাণ সোসাইটি, মাদ্রাসা শাহবাজিয়ার সভাপতি রুপে তিনি ছিলেন৷ নানা সামাজিক কর্মকান্ডে, সেবা মূলক কর্মসূচীতে তাঁর অবদান ছিল যথেষ্ট৷ তাঁর কনিষ্ঠ পুত্র পেশায় সাংবাদিক, সমাজকর্মী তথা সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মহঃ সফিউল আলম জানান, ২৫ এপ্রিল বিকেলে রাজনগরের ঐতিহাসিক ইমামবাড়া প্রাঙ্গণে রাজা সাহেবের জানাজার নামাজ পাঠ করানো হয়৷ পাঠ করান বিহার ভাগলপুরের পীরসাহেব তথা বিশিষ্ট ইসলামিক বক্তা সৈয়দ আলহজ মখমুর জামী শাহবাজী৷ অগণিত সাধারণ মানুষ চোখের জলে শেষ বিদায় জানান তাঁদের প্রিয় রাজা সাহেবকে৷ বহু বিশিষ্ট নেতা, সংগঠক, রাজনীতিক তথা সমাজকর্মী এদিন রাজা সাহেবের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন৷

এদিন সন্ধ্যার প্রাক্কালে রাজনগর শাহী মসজিদ চত্বরে রাজনগর রাজ বংশের বর্ষীয়ান প্রতিনিধি রাজা সাহেবকে কবরস্থ করা হয় তাঁদের পারিবারিক কবরস্থানে৷ তাঁর মৃত্যুর খবর পেয়ে সংবাদ মাধ্যম প্রতিনিধিরা দিনভর যোগাযোগ করেন পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে৷ সোসাল মিডিয়াতেও রাজা সাহেবকে নিয়ে অসংখ্য পোস্ট চোখে পড়ে৷

Facebook Comments