চলে গেলেন সুন্দরপুরের সজনীকান্ত ঘোড়ই, পিতৃদিবসে পিতৃহীন হলেন বসন্তকুমার

চলে গেলেন সুন্দরপুরের সজনীকান্ত ঘোড়ই, পিতৃদিবসে পিতৃহীন হলেন বসন্তকুমার

সুব্রত গুহ, বেঙ্গল রিপোর্ট, পূর্ব মেদিনীপুর: চলে গেলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের সবং থানার সুন্দরপুরের সজনীকান্ত ঘোড়ই। রবিবার বিশ্ব পিতৃ দিবসের দুপুরে তিন ছেলে আর তিন মেয়েকে পিতৃহীন করে চির ঘুমের দেশে চলে গেলেন সজনীকান্ত ঘোড়ই। মৃত্যু কালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮১ বছর।

সজনীকান্ত বাবুর বড় ছেলে কাঁথি-১ ব্লকের নয়াপুট সুধীর কুমার হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক বসন্তকুমার ঘোড়ই। সজনীকান্ত বাবু ১৯৪১ সালের ১৮ জানুয়ারি সবং থানার কেলেঘাই নদীর পাড়ে সুন্দরপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। শৈশব থেকেই কেলেঘাই নদীর পাড়ে সামান্য জমি, দিন মজুরি আর কেলেঘাই নদীতে কালঘাম ঝরিয়ে মাছ ধরা ও নদীতে সারাজীবন হাল ধরার মধ্য দিয়েই সংসার প্রতি পালনের হাল মজবুত হাতে ধরে ছিলেন। অর্থের অভাবে নিজের পড়াশোনা বেশি দুর না এগোলেও শিক্ষার মূল্য বুঝতেন। তাই অতি কষ্টে ছেলেমেয়েদের উপযুক্ত শিক্ষার ব্যবস্থা করে তাঁদের সুশিক্ষিত করে তোলেন। রবিবার সেই মজবুত হাতে ধরা সংসারে হাল চিরকালের জন্য ছেড়ে দিয়ে চিরবিদায় নিলেন সজনীকান্ত বাবু।

সজনীকান্ত ঘোড়ই প্রয়াত হওয়ার সংবাদ ছড়িয়ে পড়তেই গোটা সুন্দরপুরে শোকের ছায়া নেমে আসে। গ্রামের প্রচুর গুণমুগ্ধ মানুষজন থেকে গ্রামের সব শ্রেণীর মানুষজন শেষ শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হন সজনীকান্ত বাবুর নিজস্ব বাড়িতে। বড় ছেলে নয়াপুট সুধীর কুমার হাইস্কুলের প্রাক্তন ছাত্র প্রধান শিক্ষক বসন্তকুমার ঘোড়ই থাকেন কাঁথি শহরে। বড় পুত্রবধূ স্বপ্নারানি ঘোড়ই কাঁথি ব্রাহ্মগার্লস স্কুলের শিক্ষিকা। কাঁথি শহরেও সজনীকান্ত বাবুর প্রয়াত হওয়ার সংবাদে শোকের আবহ সৃষ্টি হয়। সজনীকান্ত বাবুর নাতনি মিমোসা ঘোড়ই প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদের প্রেসিডেন্ট।

Facebook Comments