“দেখা হবে রাজনীতির মঞ্চে,” ভিড় উপছে পড়া নন্দীগ্রাম সমাবেশে শুভেন্দু অধিকারী

“দেখা হবে রাজনীতির মঞ্চে,” ভিড় উপছে পড়া নন্দীগ্রাম সমাবেশে শুভেন্দু অধিকারী

সুব্রত গুহ, বেঙ্গল রিপোর্ট, পূর্ব মেদিনীপুর: “নন্দীগ্রাম কোনও ব্যক্তির আন্দোলন নয়। এই পবিত্র আন্দোলনের মঞ্চে দাঁড়িয়ে আমি কোন রাজনীতির কথা বলবো না। রাজনীতির প্লাটফর্মে দাঁড়িয়েই রাজনীতির কথাই বলবো।” মঙ্গলবার নন্দীগ্রামের তেখালীতে নন্দীগ্রাম শহীদ সমাবেশে বক্তব্য রাখতে গিয়ে এমনই মন্তব্য করেন রাজ্যের পরিবহন সেচ ও জলসম্পদ মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। নিজের বক্তব্যের শুরুতেই সভার সুর যেন বেঁধেদিয়ে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “এই সভা কিংবা কর্মসূচি নতুন কিছু নয়। গত ১৩ বছর ধরে ভূমি উচ্ছেদ কমিটির ব্যানারেই হয়ে আসছে সভা।

শুরুতেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল ভূমি উচ্ছেদ প্রতিরোধ কমিটিতে কংগ্রেস এবং জমিয়তে উলেমায়ে হিন্দের মতো দল থাকায় এই কমিটি কোনও রাজনৈতিক লড়াইয়ে অংশ নেবে না। “তিনি পূর্ব মেদিনীপুরের ভূমিপুত্র বলে জানিয়ে বলেন,” নন্দীগ্রামের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। চেনা বামুনের পৈতা লাগে না।” ২০০৩ সালে যুব নেতা থাকার সময় দলের এক নেতা রাজনৈতিক হামলায় আহত হয়েছিলেন। তাঁকে নিয়ে হাসপাতালে তিনিই ভর্তি করিয়েছিলে বলে স্মরণ করিয়ে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “নন্দীগ্রাম আন্দোলনে ৪১ জন শহিদ হয়েছিলেন।” এদিনের সভা থেক একের পর এক নাম তুলে ধরে স্মরণ করেন শুভেন্দু অধিকারী। বলেন শহিদের রক্ত, হবে নাকো ব্যর্থ। পাশাপাশি তিনি বলেন, “এই আন্দোলন শুভেন্দু অধিকারীর একার আন্দোলন ছিল না। নন্দীগ্রামের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক দীর্ঘদিনের।

Deenikart Halal Store

এদিনের শুভেন্দুর সভায় বহু মানুষের ভিড় লক্ষ্য করা গিয়েছে। শুধু পূর্ব মেদিনীপুর জেলা কেন, পাশের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা-সহ অন্যান্য জেলা থেকেও বহু মানুষ গিয়েছিলেন। সভায় উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক ফিরোজা বেগম, রণজিত মন্ডল, সাংসদ দিব্যেন্দু অধিকারী থেকে আবু তাহেরের মতো একাধিক নেতা ও বিধায়ক।

সমাবেশে বক্তব্য রাখতে গিয়ে শুভেন্দুবাবু ইঙ্গিতময় মন্তব্য করে বলেন, “ভোটের আগে নন্দীগ্রামের কথা মনে পড়ছে। ভোট পেরিয়ে গেলে নন্দীগ্রামের কথা মনে থাকবে তো? ভোটের আগে এলে ভোটের পরেও আসবেন তো? এই সভা কোনও নতুন নয়। যে সভা দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে চলে আসছে। আর সেই সভায় জনসমাগম দেখে আপ্লুত শুভেন্দু। সকলকে উদ্দেশ্য করে বলেন, “রাজনীতির মঞ্চে দেখা হবে। শুভেন্দু অধিকারী ভয় পায় না। সঙ্গে থাকবেন তো?”

Facebook Comments