রাজ্য সরকারের নতুন প্রকল্প, দুয়ারে দুয়ারে সরকার: প্রথম দিনে ব্যাপক সাড়া বারাসাতে

রাজ্য সরকারের নতুন প্রকল্প, দুয়ারে দুয়ারে সরকার: প্রথম দিনে ব্যাপক সাড়া বারাসাতে

নিজস্ব প্রতিনিধি, বেঙ্গল রিপোর্ট, উত্তর চব্বিশ পরগনা: পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিছুদিন পূর্বে ঘোষণা করেছিলেন যে জনগণের সমস্ত পরিষেবা কে মানুষের দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছে দেওয়ার জন্য। মুখ্যমন্ত্রীর সেই স্বপ্নের প্রকল্প দুয়ারে দুয়ারে সরকারের প্রথম দিনেই রাজ্য জুড়ে ব্যাপক সাড়া তৈরি হয়েছে।

সোমবার উত্তর ২৪ পরগনার বারাসাত দু’নম্বর ব্লকের শাসনের কৃত্তীপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের চৌমুহা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুয়ারে দুয়ারে সরকারের শুভ সূচনা হয়। উপস্থিত ছিলেন উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসক সুমিত গুপ্তা, উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের বনভূমির কর্মাধক্ষ্য একেএম ফারহাদ, এডিএম এল আর ইউনিস রিচিন ইসমাইল, বারাসাত দু’নম্বর ব্লকের সমষ্টি উন্নয়ন আধিকারিক অর্ঘ্য বন্দ্যোপাধ্যায়, বারাসাত দু নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মনোয়ারা বিবি, কীর্তিপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রবিউল ইসলাম প্রমূখ।

আজকে মূলত চৌমুহা উচ্চ বিদ্যালয়ে দুয়ারে দুয়ারে সরকার এর কারণে সাধারণ মানুষের ভিতরে একটি উৎসবের আকার তৈরি হয়। মানুষের এই স্বতঃস্ফূর্ত সাড়ায় কর্মাধ্যক্ষ এ কে এম ফারহাদ থেকে প্রধান রবিউল ইসলাম সরেজমিনে থেকে মানুষকে পরিষেবা দেওয়ার জন্য কাজে নেমে পড়েন।

এদিন উত্তর ২৪ পরগনার জেলাশাসক সুমিত গুপ্তা বলেন আজকে ১১ টি প্রকল্প নিয়ে দুয়ারে সরকারের শুভসূচনা করা হলো। আমরা মানুষকে যথার্থ পরিষেবা দেওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর এই প্রকল্পকে বাস্তবে রূপদান করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করছি। তিনি সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন মানুষ বেশি স্বাস্থ্য সাথী প্রকল্পের কার্ডের জন্য আবেদন করছেন, আমরা তাই এই বিষয়টাকে অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে দেখার চেষ্টা করছি।

জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ একেএম ফারহাদ বলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সাধারণ মানুষকে সমস্ত রকম পরিষেবা দেওয়ার জন্য আন্তরিকভাবে যে আপ্রাণ চেষ্টা করছেন তা প্রশংসার দাবি রাখে। বিরোধীদের সমস্ত অপপ্রচার কে রুখে দিয়ে পর পর যেভাবে তিনি জনমুখি প্রকল্প গ্রহণ করে চলেছেন তা এককথায় অনবদ্য নজির স্থাপন করেছে। তিনি আরো বলেন রাজ্যের পুর ও নগর উন্নয়নমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম আজকে কলকাতার বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে দুয়ারে সরকারের কর্মকাণ্ড কে পরিচালনা করছেন তারই সৈনিক হিসাবে আমিও দুয়ারে সরকারের পরিষেবা কে ত্বরান্বিত করার জন্য মানুষের দুয়ারে দুয়ারে চলে এসেছি।

বারাসাত দু’নম্বর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মনোয়ারা বিবি বলেন দুয়ারে সরকার এর মধ্য দিয়ে আমরা-ওরার বিভাজন না করে সমস্ত শ্রেনীর মানুষদেরকে পরিষেবা দেওয়ার কাজ করা হচ্ছে। তিনি কেন্দ্রের সবকা সাথ সবকা বিকাশ এর সমালোচনা করে বলেন বিজেপি সকলের সাথে সকলের জন্য কাজ করে না, কিন্তু রাজ্য সরকার সকলের জন্যই স্বাস্থ্যসাথী- খাদ্যসাথী ইত্যাদি প্রকল্পের কাজ বাস্তবায়ন করেছে।

অন্যদিকে স্থানীয় কৃত্তীপুর এক নম্বর গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান রবিউল ইসলাম বলেন রাজ্যের সাত কোটির অধিক মানুষ খাদ্যসাথীর মধ্য দিয়ে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে চাল, গম, আটা ইত্যাদি পেয়ে চলেছেন। অন্যদিকে মুখ্যমন্ত্রীর ঘোষণা মত রাজ্যের প্রায় সমস্ত মানুষই স্বাস্থ্য সাথীর আওতায় চলে আসছে। ইহা ছাড়াও কাস্ট সার্টিফিকেট, কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, ঐক্যশ্রী সহ প্রভৃতি ১১ টি প্রকল্পকে তৃণমূল স্তরে মানুষকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়ার জন্য মুখ্যমন্ত্রী দুয়ারে সরকার চালু করেছেন। এখন থেকে আমরা জনগণের দুয়ারে দুয়ারে গিয়েই সেই পরিসেবা পৌঁছে দেব।

Facebook Comments