বীর শহীদ রাজেস ওরাং এর পরিবার উদ্বোধন করলেন রামপুরহাটে দুর্গা পুজো

বীর শহীদ রাজেস ওরাং এর পরিবার উদ্বোধন করলেন রামপুরহাটে দুর্গা পুজো

অমলেন্দু মন্ডল, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: না কোন নেতা বা মন্ত্রী নয়। নয় কোন চলচিত্র জগতের অভিনেতা বা অভিনেত্রী। দূর্গাপুজোর উদ্বোধন করলেন বীর শহীদের রত্নগর্ভা মা। সঙ্গে হাজির ছিলেন বীর শহীদের পরিবারের সকল সদস্য।

বীরভূমের রামপুরহাট পুরসভার আট নম্বর ওয়ার্ডের কালিসাঁড়া নাগরিক কমিটির উদ্যোগে কালিসাঁড়া-আমতলা সার্বজনীন দূর্গাপুজোর মন্ডপ ফিতে কেটে ও প্রদীপ জ্বালিয়ে উদ্বোধন করলেন বীরভূমের মহম্মদবাজারের বীর শহীদ রাজেশ ওরাঁও এর মা শকুন্তলা দেবী। হাজির ছিলেন শহীদের বাবা, বোন ও দাদারা। শহীদ পরিবারের হাত দিয়ে দূর্গাপুজোর উদ্বোধন করিয়ে নজির গড়লেন পুজোর উদ্যক্তরা।

পুজো উদ্যক্তাদের এহেন উদ্যোগে এদিন কালিসাঁড়া নাগরিক কমিটির দূর্গা পুজোর মন্ডপের সামনে হাজির হয়েছিলে এলাকার বহু সেনা কর্মী ও তার পরিবার। শহীদের পরিবারকে দেখতে রাস্তার ধারে দীর্ঘক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকেছেন অসংখ্য সাধারণ মানুষ। তবে করোনা বিধি মেনে কোন রকম জমায়েত করতে দেয়নি পুজোকমিটির স্বেচছাসেবকেরা। মাক্স ছাড়া এলাকায় প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি কাউকেই।

বীরভূমের রামপুরহাট পুরসভার আট নম্বর ওয়ার্ডের কালিসাঁড়া নাগরিক কমিটির দূর্গাপুজো এবছর দশ বছরে পড়ল। অরণ্যের মধ্যে সুসজ্জিত মন্দিরের আদলে পুজোর মন্ডপ। লতা ও গাছগাছালি দিয়ে সাজানো হয়েছে মন্ডপের ভিতর ও বাহিরের অংশ। সেই মন্ডপের মধ্যে বেল গাছের তলায় অধিষ্ঠিত দেবী দুর্গার প্রস্তর খদিত শিলা মূর্তি। দেবী মূর্তির সামনে রয়েছেন রামচন্দ্র, লক্ষণ, হনুমান ও সুগ্রীব। মাদূর্গার আরাধনা করছেন রামচন্দ্র।

পুজোর উদ্যক্তারা জানান, বনবাসে থাকার সময় সীতাকে উদ্ধার করতে রাবনের সঙ্গে যুদ্ধ করতে হয়েছিল রামচন্দ্রকে। সেই যুদ্ধে রাবণকে পরাস্ত করতে একটি বেল গাছের নীচে দেবী দূর্গার অকাল বোধন করে মাদুর্গার আরাধনা করেছিলেন রামচন্দ্র। সেই অকালবোধনের দৃশ্য তুলে ধরা হয়েছে কালিসাঁড়া নাগরিক কমিটির পুজোর মণ্ডপে।

উদ্যক্তরা আরও বলেন, দেবী দুর্গা অসুরদের সঙ্গে করে মহীশাশূরকে বধ করে অসুরদের হাত থেকে দেবতাকুল ও ব্রম্ভান্ডকে রক্ষা করেছিলেন। ঠিক সেইরকমভাবে চীনের অসুরদের হাত থেকে আমাদের ভারতমাতাকে রক্ষা করেছেন আমাদের আরেক মায়ের বীর সন্তান রাজেশ ওরাঁও। সেই বীর সন্তানের মা আমাদের কাছে দেবীদূর্গা। তাই আমাদের দেবী দূর্গার আরাধনা শুভ সূচনা আরেক দেবীর হাত দিয়েই সূচিত হলো।

Facebook Comments