করোনা আবহে শিশুদের আনন্দদানে, নাকড়াকোন্দায় এবারের পূজার থিম “অন্য পৃথিবী”

করোনা আবহে শিশুদের আনন্দদানে, নাকড়াকোন্দায় এবারের পূজার থিম “অন্য পৃথিবী”

সেখ রিয়াজউদ্দিন, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: বীরভূম জেলার খয়রাশোল ব্লকের বর্ধিষ্ণু গ্রাম নাকড়াকোন্দা, সেখানে রয়েছে সাহিত্যিক ফাল্গুনী মুখোপাধ্যায় এর জন্মভূমি, যার খ্যাতি দেশব্যাপী বিরাজমান। তার- ই নামানুসারে এলাকায় রয়েছে মহাবিদ্যালয়, গ্রামে রয়েছে ক্লাব।

এই গ্রামের বর্তমান প্রজন্মের তরুণ যুবারা সাহিত্যিক ফাল্গুনী মুখোপাধ্যায় এর স্মৃতিকে চিরস্মরণীয় ভাবে ধরে রাখতে শুরু করেন দুর্গোৎসব, যাহা ফাল্গুনী পল্লী দুর্গোৎসব কমিটি নামে পরিচিত, এবার তাদের পূজা সপ্তম বছরে পদার্পণ করল। সাংস্কৃতিক মনোভাবাপন্ন কমিটির যুবদের সারাবছর বিভিন্ন সমাজসেবামূলক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের পাশাপাশি দুর্গোৎসবের থিম নিয়ে ও চলে চুলচেরা চিন্তাভাবনা।প্রতি বছরের ন্যায় এবারও নতুন ভাবনার প্রতিফলন দেখা যায় পুজা মন্ডপে,এবারের থিম এনাদার ওয়ার্ল্ড বা “অন্য পৃথিবী”, ইতিমধ্যেই জনমানসে তার প্রভাব বিস্তার করেছে।
চলমান ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে যার ভাবনা, উদ্যোগ এবং দক্ষ সংগঠক হিসেবে এলাকায় সর্ব পরিচিত সেই শ্রীমন্ত মুখার্জি এক সাক্ষাৎকারে “অন্য পৃথিবী”- থিম সম্পর্কে তার ভাবনার কথা একান্ত সাক্ষাৎকারে জানান, অতিমারি করোনার আতঙ্কে আতঙ্কিত সমগ্র বিশ্বব্যাপী, সেই আতঙ্কের ছাপ প্রত্যন্ত গ্রাম এলাকাতেও লক্ষ্য করা যায়।

বাড়ির সকলেই এক প্রকার গৃহবন্দি অবস্থায় কাটিয়েছে দীর্ঘদিন, এখন যদিও বড়োরা জীবন জীবিকার তাগিদে বাড়ির বাইরে বের হচ্ছেন, কিন্তু ভবিষ্যৎ প্রজন্ম তথা বাচ্চারা এখনো পর্যন্ত গৃহবন্দী কিম্বা পাড়াবন্দি। স্কুল, আত্মীয় বা বাইরে অন্যান্য অনুষ্ঠানে যাওয়ার কথা ও একেবারে বেমালুম ভুলে গেছে। বিশেষ করে তাদের কথা মাথায় রেখে বাঙালির শ্রেষ্ঠ উৎসব, আনন্দোৎসব -দুর্গোৎসব, সেই আনন্দে আনন্দিত হয়ে উঠুক পরিবার সহ সকলেই তার ই এক ক্ষুদ্র প্রয়াশ নেওয়া হয়েছে। মন্ডপের গোল পিলার যুক্ত মূল দরজার প্রবেশপথের চারিদিকে প্যান্ডেলের কারুকার্যের উপর প্রজেক্টরের মাধ্যমে বাচ্চাদের মনোমত বিভিন্ন ধরনের জীবজন্তুর ছবি পর্দার মধ্যে ফোকাসিত করা হচ্ছে।

এসমস্ত চিত্র দেখে বাচ্চাদের পাশাপাশি বড়োরা ও আনন্দ উপভোগ করতে দেখা যায় এখানেই আমাদের সার্থকতা। অন্য পৃথিবীর থিম দেখতে এখানে খয়রাশোল ব্লক সহ পার্শ্ববর্তী রাজনগর, দুবরাজপুর ব্লক এবং পশ্চিম বর্ধমান জেলা, ঝাড়খণ্ড রাজ্য থেকেও দর্শনার্থীরা আসছেন পুজো মণ্ডপে। সঙ্গী হিসেবে গ্রাম্য যুবক অধ্যাপক মিঠুন চক্রবর্তী, কাজল চক্রবর্তী, প্রহ্লাদ দে সহ কমিটির সমস্ত যুবদের অক্লান্ত পরিশ্রমে এরূপ থিম দাড় করানো সম্ভবপর হয়েছে। এখানে বিভিন্ন সম্প্রদায়ের মানুষের উপস্থিতিতে সম্প্রীতির মেলবন্ধন ঘটে, কবি চন্ডীদাস এর কথায়- “শুনহ মানুষ ভাই, সবার উপর মানুষ সত্য তাহার উপর কিছু নাই”।

Facebook Comments