পুর ভোটের প্রচার তুঙ্গে তৃণমূলের, রামপুরহাটে প্রচারে সাংসদ ও ডেপুটি স্পীকার

পুর ভোটের প্রচার তুঙ্গে তৃণমূলের, রামপুরহাটে প্রচারে সাংসদ ও ডেপুটি স্পীকার

অমলেন্দু মন্ডল, বেঙ্গল রিপোর্ট, বীরভূম: আগামী ২৭ শে ফেব্রুয়ারি রাজ্যের ১০৮ টি পুরসভার নির্বাচন, হাতে আর মাত্র তিনদিন প্রচারের সময়। নির্ব্বাচনের প্রচারে বিন্দুমাত্র সময় নষ্ট করছে না রামপুরহাট পুরসভার তৃনমূল প্রার্থী কর্মী সমর্থকরা। নিয়ম করে প্রতিদিন রামপুরহাট বিধায়ক, জেলা তৃনমূলের জেলা চেয়ারম্যান, তথা রাজ্যের ডেপুটি স্পীকার ডঃ আশিষ বন্দোপাধ্যায়, সারাদিন প্রতিটি ওয়ার্ডে নিয়ম করে প্রচার করছেন।

রামপুরহাট পুরসভার মোট ১৮ টি ওয়ার্ড রয়েছে, নির্বাচনের আগেই ৫ টি ওয়ার্ডে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয় লাভ করেছে তৃনমূল। নির্ব্বাচন হবে ১৩ টি ওয়ার্ডে, নির্ব্বাচন প্রচারে বিরোধী রা তেমন সাড়া না ফেলতে পারলেও তৃনমূল প্রচারে এগিয়ে, প্রতিদিন নিয়ম করে সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সারাদিন প্রচার করছেন, বিধায়ক আশীষ বন্দোপাধ্যায়, জেলা আই এন টি ইউ সি সভাপতি ত্রিদিব ভট্টাচার্য, জেলা পরিষদের মেন্টর, লাভপুর বিধায়ক অভিজিৎ সিংহ থেকে মন্ত্রী চন্দনাথ সিনহা, প্রচারে বীরভূম সাংসদ শতাব্দী রায় সকলেই সারদিন রামপুরহাটে র প্রচার করছেন।

রামপুরহাট ১৪ নং ওয়ার্ডের তৃণমূল প্রার্থী শুদ্ধোধন ব্যানার্জ্জীর সমর্থনে বুধবার পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। সাংসদ শতাব্দী রায়, আই এন টি ইউ সি সভাপতি ত্রিদিব ভট্টাচার্য, ব্লক সভাপতি আনারুল হোসেন, টাউন সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রেকিব, সম্পাদক অভিষেক বন্দোপাধ্যায় সহ সব তৃনমূল নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন এই পথ সভায়। নির্ব্বাচন সুষ্ঠভাবে যাতে হয় তার দাবীতে কয়েকদিন আগেই জেলা বিজেপির পক্ষথেকে ধর্না মঞ্চ করে রামপুরহাট মহকুমা শাসকের কাছে একটি স্মারকলিপি দেন।

এপ্রসঙ্গে একান্ত এক সাক্ষাৎকারে ডেপুটি স্পীকার আশিষ বন্দোপাধ্যায় আমাদের জানান, বিজেপি সহ বিরোধী দলগুলো সুষ্ঠভাবে মনোনয়ন করতে পারলেন, প্রচার করছেন প্রতিটি ওয়ার্ডে কোথাও কোন বাধা পাচ্ছেন না, অথচ তারা বলছেন সুষ্ঠভাবে নির্ব্বাচন হোক, তাদের পাশে সাধারণ মানুষ নেই, সব ওয়ার্ডে প্রার্থী দিতে পারেন নি কোন দলই, নিজেদের পায়ের তলায় মাটি নেই তাই উল্টোপাল্টা বলছে।

বিরোধীদের অভিযোগ জোড় করে অনেক প্রার্থী কে মনোনয়ন প্রত্যাহার করিয়েছে। বিরোধীদের এই বক্তব্য কে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়ে জেলা আই এন টি ইউ সি সভাপতি ত্রিদিব ভট্টাচার্য জানান বিরোধীদের এই বক্তব্য সর্বৈব্য মিথ্যা কারণ মনোনয়ন প্রত্যাহার জোড় করে করলে ১৮ টি ওয়ার্ডের প্রার্থীকে প্রত্যাহার করানো হতো, কিন্তু বেশ কয়েকটি ওয়ার্ডে বিরোধীদের প্রার্থী রয়েছে। যেখানে তারা প্রার্থী পাননি সেখানে তারা এই অভিযোগ করছে। প্রচারের শেষ লগ্নে তৃনমূলের প্রচার তুঙ্গে, বিরোধীদের প্রচার সেভাবে নেই বললেই চলে।

Facebook Comments